সেলিম ওসমানকে বিজয়ী করতে পূজা পরিষদের মতবিনিময় সভা

0
82

খবর নারায়ণগঞ্জ.কম : আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ -৫ আসনের সাংসদ একেএম সেলিম ওসমানকে বিজয়ী করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর উদ্যোগে হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দের নিয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ( ৭ ডিসেম্বর) দুপুরে শহরের চাষাড়াস্থ শ্রী শ্রী গোপাল জিউর বিগ্রহ মন্দিরে এই সভার আয়োজন করা হয়।

মতবিনিময় সভায় বক্তব্যে জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক শিখণ সরকার শিপন বলেন, নারায়ণগঞ্জ -৫ আসনের সাংসদ একেএম সেলিম ওসমানকে দলমত নির্বিশেষে আমরা হিন্দু সম্প্রদায় ঐক্যবদ্ধ হয়ে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করতে হবে। মনে রাখবেন দল যার যার সেলিম ওসমান সবার। ওসমান পরিবার আছে বলেই নারায়ণগঞ্জে হিন্দু সম্প্রদায় নির্বিঘ্নে বসবাস করতে পারছি। তিনি আমাদের লাঙ্গলবন্দসহ শারদীয় দুর্গাপূজা থেকে শুরু প্রতিটি ধর্মীয় ও সামাজিক অনুষ্ঠান গুলোতে সর্বাত্মক সহযোগিতা করে থাকে। ওসমান পরিবার আমাদের উপর ছায়ার মতো আছেন।

তিনি আরও বলেন, নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা উনি কিন্তু নৌকার কোনো প্রার্থী দেন নাই। সুতরাং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেহেতু নৌকার কোনো প্রার্থী দেয় নাই তাহলে আমাদেরকে অবশ্যই লাঙলকে বিজয়ী করতে হবে। কারন মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তি কিন্তু বীর মুক্তিযোদ্ধা সেলিম ওসমান এমপি। বিগত দিনে তিনি লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করেছিলেন এবারও করবেন। সেলিম ওসমান কোনো দলের না তিনি সকলের। দলমত নির্বিশেষে আমরা সকল হিন্দু সম্প্রদায় সেলিম ওসমানকে বিজয়ী করতে হবে।

এছাড়াও মতবিনিময় সভা হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দরা বলেন, দল যার যার, সেলিম ওসমান সবার। দল মত নির্বিশেষে আমরা আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জের পাঁচটি আসনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মনোনীত প্রার্থী বিশেষ করে নারায়ণগঞ্জ- ৫ আসনের সাংসদ একেএম সেলিম ওসমানের পক্ষে কাজ করে বিজয়ী করার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আবারও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বানাবো বলে আশা ব্যক্ত করেন।

নারায়ণগঞ্জ জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সাংবাদিক শংকর কুমার দে’র সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শিখণ সরকার শিপনের সঞ্চালনায় মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন, এফবিসিসিআইয়ের সাবেক পরিচালক প্রবীর কুমার সাহা, নারায়ণগঞ্জ জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের উপদেষ্টা বাসুদেব চক্রবর্তী, শ্যামল সাহা, পরিতোষ কান্তি সাহা, মহাতীর্থ লাঙ্গলবন্দ পূর্ণ স্নান উদযাপন পরিষদের সভাপতি সরোজ কুমার সাহা, সাধারণ সম্পাদক সুজিত কুমার সাহা, বাংলাদেশ ইয়াং মার্চের সভাপতি লিটন সাহা, মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি বিষ্ণুপদ সাহা, সাধারণ সম্পাদক সুশীল দাস, সহ- সভাপতি সাংবাদিক উত্তম সাহা, জেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি প্রদীপ কুমার দাস, মহানগরের সভাপতি লিটন চন্দ্র পাল, সাধারণ সম্পাদক নিমাই চন্দ্র দে, নতুন পালপাড়া পূজা কমিটির সাধারণ সম্পাদক রিপন ভাওয়াল, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শ্যামল বিশ্বাস, অশোক দাস, শোভন দাস, কোষাধ্যক্ষ শা‌ন্তি দাস, প্রচার সম্পাদক তপন গোপ সাধু, দপ্তর সম্পাদক অভিরাজ সেন সজল, সহ- প্রচার সম্পাদক তারেক দাস, সদস্য লক্ষণ বিশ্বাস, বিপ্লব সাহা, বিজয় দাস, রাজিব রায় রাজু, ভক্ত দাস, ভোলানাথ সাহা বিজয়, মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সহ- সভাপতি হিমাদ্রি সাহা হিমু, রতন পোদ্দার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শংকর রায়, সাংগঠনিক সম্পাদক কৃষ্ণ আচার্য, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সঞ্চয় কুমার দাস, কোষাধ্যক্ষ তপন ধর, সদস্য রাজিব দাস ভৌমিক, প্রচার সম্পাদক রিপন ঘোষ, বন্দর লালজী মন্দিরের মহারাজ, জেলা যুব ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ভজন চন্দ্র দাস, মহানগর যুব পরিষদের আহ্বায়ক শ্রী সঞ্জিত কুমার, সদস্য সচিব পলাশ চন্দ্র রায়, সদস্য সুদীপ দাস সুদীপ্ত, আকাশ সাহাসহ জেলা ও মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের বিভিন্ন ইউনিটের এবং মন্দির কমিটির নেতৃবৃন্দ।