প্রাইম ব্যাংক স্কুল ক্রিকেট টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন রংপুর শিশু নিকেতন উচ্চ বিদ্যালয়

খবর নারায়ণগঞ্জ.কম :
২১তম ওভারের দ্বিতীয় বলটি মিড অনে ঠেলে রান নিতে গিয়েই ঘটে বিপদ। রান আউট হন মেহেরপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ইউসুফ আলী। সঙ্গে সঙ্গে ভাগ্যও নির্ধারিত হয়ে যায় ম্যাচের। রংপুর শিশু নিকেতন উচ্চ বিদ্যালয়ের কোচসহ ক্রিকেটাররা মাঠের দিকে দৌড় দিলেন। পরক্ষণে ক্ষুদে ক্রিকেটারদের উল্লাস যেন আর থামেই না। থামবেই বা কেন? ৩৫০ স্কুলের মধ্যে যে রংপুর-ই সেরা!
৩৫০ স্কুলের ৭ হাজার খুদে ক্রিকেটার নিয়ে শেষ হলো চলতি মৌসুমের প্রাইম ব্যাংক স্কুল ক্রিকেট।সবাইকে ছাপিয়ে শিরোপা ছুয়েছে রংপুর শিশু নিকেতন উচ্চ বিদ্যালয়। সোমবার (১৩ জুন) নারায়ণগঞ্জ শামসুজ্জোহা ক্রীড়া কমপ্লেক্সে মেহেরপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়কে তারা ৫৯ রানের বিশাল ব্যবধানে হারিয়েছে।
সোমবার (১৩ জুন) নারায়ণগঞ্জ শামসুজ্জোহা ক্রীড়া কমপ্লেক্সে রংপুরের স্কুলটি এক তরফা ভাবেই ম্যাচ জিতেছে। টস হেরে ব্যাটিং করতে নেমে ৩৭.১ ওভারে মাত্র ১০২ রান করে শিশু নিকেতন। আহমেদ তেজানের ২৮ ও সাদের ২৪ রানে কোনওমতে একশ পার করে তারা।
রান তাড়া করতে নেমে পঞ্চাশও ছুঁতে পারেনি মেহেরপুর। একুশ ওভার শেষের আগেই ৪৩ রানে অলআউট হয়েছে। রংপুরের অধিনায়ক শেখ ইমতিয়াজ শিহাবের ঘূর্ণি জাদুতে আত্মসমর্পণ করে মেহেরপুর। এই লেগ স্পিনার ৫ ওভারে মাত্র ১৪ রানে ৫ উইকেট নিয়েছেন।
শুধু ফাইনাল নয়, পুরো টুর্নামেন্ট জুড়ে প্রতিপক্ষের হন্তারক ছিলেন এই খুদে লেগস্পিনার। পুরো টুর্নামেন্টে তার শিকার ৩৩ উইকেট। ম্যাচ সেরা, সিরিজ সেরা ও সর্বোচ্চ উইকেট শিকার; তিনটি পুরস্কারই নিজের পকেটে পুড়েছেন। এছাড়া ২ উইকেট নেন শামিউল ইসলাম শুভ।
একদিকে যখন রংপুরের শিক্ষার্থীদের বিজয়োল্লাস চলছিল, অন্যদিকে মেহেরপুর শিবিরে ছিল পরাজয়ের শোক! মেহেরপুরের অধিনায়ক ইশতিয়াক আহমেদ জিয়ানের তো কান্নাই থামছিল না। শুধু তিনিই নন, একে অন্যকে জড়িয়ে ধরে কান্নার রোলও ওঠে। কোনওভাবেই এই হার মানতে পারছিল না ফাইনালের আগে অপরাজিত থাকা মেহেরপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়।
সেমিফাইনালে সরকারি জুবিলি হাই স্কুলকে ৪২ রানে হারিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করে শিশু নিকেতন বিদ্যালয়। অন্যদিকে গাজী মেমোরিয়াল মাধ্যমিক বিদ্যালয়কে ৩ উইকেটে হারিয়ে শিরোপার লড়াইয়ে ওঠে মেহেরপুর।
করোনার কারণে গত দুই বছর মাঠে গড়ায়নি স্কুল ক্রিকেট। নতুন মোড়কে এবার ৩৫০ স্কুল এই প্রতিযোগিতায় নাম লেখায়। জেলা পর্যায়ে ম্যাচ হয় ৫৮১ টি। এরপর জেলা চ্যাম্পিয়নদের অংশগ্রহণে বিভাগীয় রাউন্ডে ৫৭টি ম্যাচ খেলা হয়েছে। ওখান থেকে ৭ বিভাগ ও ঢাকা মেট্রো চ্যাম্পিয়নদের নিয়ে মাঠে গড়ায় ন্যাশনাল রাউন্ড। সব মিলিয়ে ৬৪ জেলায় মোট ৬৫৩টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেখান থেকেই রংপুর শিশু নিকেতন উচ্চ বিদ্যালয় চ্যাম্পিয়নের মুকুট মাথায় দিয়েছে।

এটাও চেক করেন

সকল ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে যেমন পদ্মা সেতু দৃশ্যমান তেমনিভাবে আলীগঞ্জ মাঠও দৃশ্যমান – পলাশ

খবর নারাযনগঞ্জ.কম: জাতীয় শ্রমিক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আলহাজ্ব কাউসার আহমাদ পলাশ বলেছেন, বাঙালি …

Shares